Motherboard কি | মাদারবোর্ড এ সাধারণত কি কি থাকে | মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ | মাদারবোর্ডের দাম

    Motherboard কি! এ বিষয়ে আমরা কম বেশী কিছু জানি কিন্তু সমস্ত কিছু জানিনা।কারণ আপনি কি জানেন একটি মাদারবোর্ড সমস্ত রকম ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস এর মধ্যে থাকে।

   অর্থাৎ বলতে পারি একটি মাদারবোর্ড ছাড়া কখনো কোন ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস তৈরি হতে বা চলতে পারে না। সুতরাং মাদারবোর্ড কি এটুকু জানলেই মাদারবোর্ড সম্পর্কে সমস্ত তথ্য জানা হয়ে যায় না।
Motherboard কি | মাদারবোর্ড এ সাধারণত কি কি থাকে | মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ | মাদারবোর্ডের দাম

    সাধারণত আমরা মাদারবোর্ড কি একথা শোনার সঙ্গে সঙ্গে বলতে পারব যে কম্পিউটারের সিপিইউ এর মধ্যে একটি বড় বোর্ড থাকে যাকে আমরা মাদারবোর্ড বলি। কিন্তু এটি কি সঠিক ! না এটি সঠিক নয় কারণ আপনি যেটি বলছেন সেটি কোনভাবে সঠিক হতে পারে না।

   যেকোনো রকম ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস যে সমস্ত কম্পোনেন্ট বা উপাদানের মাধ্যমে তৈরি হয় সমস্ত উপাদান গুলি এই মাদারবোর্ড এর সঙ্গে যুক্ত থাকে।সুতরাং আপনি যদি একথা বলে দেন যে কম্পিউটারের মধ্যে যে বর্বর থাকে তাকে মাদারবোর্ড বলে তাহলে সেটি ভুল বলা হবে।

   একই রকম ভাবে আমাদের এই হাতের স্মার্টফোনগুলো মাদারবোর্ড দ্বারা গঠিত এবং মাদারবোর্ড দিয়েই তা চলতে সক্ষম।বলতে পারি কোন ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস এর মধ্যে যেমন মোবাইল কম্পিউটার ল্যাপটপ স্মার্ট টিভি এলইডি টিভি ইত্যাদি গুলিতে প্রধানত যে বোর্ড থাকে তাকে আমরা মাদারবোর্ড বলতে পারি।

    কিন্তু এখানেই মাদারবোর্ড এর সমস্ত জিনিস বা বিষয় বা কাকে বলে জানাটা সম্পূর্ণ হতে পারে না। কারণ মাদারবোর্ড এর সঙ্গে অনেক রকম কম্পোনেন্ট যুক্ত থাকে যেগুলি ছাড়া মাদারবোর্ড তৈরি হতে পারে না।

    সুতরাং একটি বোর্ড বড় আকারের হলেই তা মাদারবোর্ড হতে পারে না। তাহলে চলুন মাদারবোর্ড কি এ বিষয়ে আমরা ভালোভাবে এবং বিস্তারিত ভাবে জেনে নি।



Motherboard কি


    মাদারবোর্ড কি এর উত্তরে আমরা এক কথায় সবাই বলি যে কম্পিউটারের মধ্যে বড় আকারের যে বোর্ড থাকে তাকে আমরা মাদারবোর্ড বলি। 

    মাদারবোর্ড হল কোন কম্পিউটার বা ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস এর সব থেকে মূল্যবান এবং প্রধান উপাদান হয়ে থাকে। যার সঙ্গে ওই ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইসটির সমস্ত রকম পার্ট গুলি যুক্ত থাকে।

    যদি আমরা মাদারবোর্ডের হিসাবটা কম্পিউটার দিয়ে বুঝতে চেষ্টা করি তবে মাদারবোর্ড হবে সেই জিনিস যা সিপিইউ, RAM, গ্রাফিক্স কার্ড, কিবোর্ড, মাউস, প্রিন্টার, মনিটর, হার্ড ডিস্ক, DVD writer, ইত্যাদিকে যুক্ত করে থাকে।

    একটি মাদারবোর্ড কম্পিউটারের সমস্ত ইন্টারনাল এবং এক্সটারনাল উপাদানগুলিকে যুক্ত করে রাখে।অর্থাৎ আউটপুট ডিভাইস ও ইনপুট ডিভাইস গুলো কে যুক্ত করে যে বোর্ড চালাতে সক্ষম তাই হল মাদারবোর্ড

    মাদারবোর্ড এর যতগুলি উপাদান বা কম্পোনেন্ট থাকে সেগুলি পিসিবি এর উপর যুক্ত করা থাকে। আমরা বলতে পারি যে বোর্ড এর উপর কম্পিউটার বা যেকোন ইলেকট্রিক ডিভাইসের কম্পোনেন্ট গুলি বসানো থাকে সেই বোর্ডকে PCB বোর্ড বলি

    PCB বোর্ড এর মানে হলো প্রিন্টেড সার্কিট বোর্ড, একটি মাদারবোর্ডে যে সমস্ত কম্পনেন্ট বা উপাদান প্রয়োজন সমস্ত কম্পনেন্ট উপাদানগুলি এই মাদারবোর্ড এর সঙ্গে যুক্ত করা থাকে আর যেগুলি যুক্ত করা সম্ভব নয় সেগুলি এই মাদারবোর্ড এর সঙ্গে কানেক্ট আর ব্যবহার করে তা যুক্ত করতে হয়।

    তাহলে মাদারবোর্ড হলো একটি কম্পিউটার বা যে কোন ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস এর সেই প্রধান বোর্ড যার সঙ্গে সমস্ত রকম কম্পোনেন্টগুলো যুক্ত হয়ে থাকে।

   একই রকম ভাবে একটি মোবাইল এর মাদারবোর্ড তার সমস্ত কোম্পানির গুলি যুক্ত করে রাখে।যদিও একটি কম্পিউটারের মাদারবোর্ড এর সঙ্গে একটি মোবাইলের মাদারবোর্ড এর তফাৎ আছে তবুও দুটি কার্য কতভাবে একই রকম কাজ করে থাকে।

    কম্পিউটারের মাদারবোর্ড কানেক্টর দ্বারা তার আউটপুট ডিভাইস গুলিকে যুক্ত করে কিন্তু মোবাইলের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ আউটপুট ডিভাইস গুলি মোবাইলের সঙ্গেই দেওয়া থাকে প্রয়োজনমতো পোর্ট ব্যবহার করে আউটপুট ডিভাইস তার সঙ্গে যুক্ত করা যায়।

    তাহলে আমরা মাদারবোর্ড কি এই সম্পর্কে জানলাম। আশাকরি মাদারবোর্ড সম্পর্কে সাধারণ ধারণা আমাদের মধ্যে ছিল তা এখন আর নেই। কারণ মাদারবোর্ড কোন সামান্য জিনিস নয়। মাদার্বোর্ড মদেল শরীরের মত।

    হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন মাদারবোর্ড আমাদের শরীরের মতো কারণ আমাদের শরীরের সঙ্গে সমস্ত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ গুলি জুড়ে একটা যেমন পরিপূর্ণ শরীর তৈরি করে ঠিক একই রকম ভাবে একটি ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস মাদারবোর্ড এর সঙ্গে সমস্ত উপাদানগুলি যুক্ত করে একটি পরিপূর্ণ ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস তৈরি করা হয়।

    আমাদের প্রধান শরীরের অর্থাৎ মাদারবোর্ডে যেমন মাথাটি লাগানো থাকে এটি হলো সিপিইউ এর কাজ করে। আবার হাত দুটি দিয়ে মস্তিষ্কের অনুসরণে কোন কাজ আমরা দ্রুত গতিতে করতে পারি অর্থাৎ হাত দুটি Ram মতো কাজ করে।

    আশাকরি এবার তাহলে বুঝতে পারলেন যে মাদারবোর্ড কতখানি গুরুত্বপূর্ণ একটি ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস এর জন্য এবং Motherboard কি। দেখুন চলুন আমরা দেখিনি যে মাদারবোর্ড এ সাধারণত কি কি থাকে ?




মাদারবোর্ডে সাধারণত কি কি থাকে 


     মাদারবোর্ড এ সাধারণত কি কি থাকে এই বিষয়টি জানতে গেলে আমাদের কমবেশি পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো মাদারবোর্ড সম্পর্কে একটু খানি জানা উচিত।

    পৃথিবীর প্রথম যখন কম্পিউটার সৃষ্টি করা হয় তখন তার মাদারবোর্ডটি ছিল একটি বিশাল লম্বা হলঘরের মতো বৃহৎ। তাহলে আশা করি বুঝতে পারছেন বৃষ্টি মাদারবোর্ডে কত কিছু থাকতে পারে।

   একটি মাদারবোর্ড কয়েক'শ প্রকার কম্পোনেন্ট নিয়ে তৈরি করা হয়।যদিও বর্তমানে মাদারবোর্ডের আকার ধীরে ধীরে ছোট হতে চলেছে তার মানে এটা নয় যে মাদারবোর্ড এর উপর এই কম্পোনেন্ট গুলো কে বাদ দেওয়া হয়।

    আসলে কোন কম্পনেন্ট কে বাদ দিলে মাদারবোর্ড চলতে পারবে না শুধুমাত্র যে সকল কম্পোনেন্ট আগে আলাদা আলাদা ব্যবহার করা হতো সেগুলিকে এখন অন্য একটি কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত করে ব্যবহার করা হচ্ছে এর ফলে মাদারবোর্ড এর আকার ধীরে ধীরে প্রযুক্তিগতভাবে ছোট হতে চলেছে।

    কিন্তু একটি মাদারবোর্ডে প্রচুরসংখ্যক পার্ট থাকে, যদিও আমাদের প্রধান প্রধান কম্পানি গুলি সম্পর্কে জানা উচিত তবুও যতগুলি আমার জানা বিষয় আছে যেগুলি মাদারবোর্ড এর সঙ্গে সাধারণত থাকে আমি সেগুলি নিয়ে নিচে পরপর আলোচনা করলাম ।



Processor Socket :  প্রসেসর সকেট এটিকে আমরা সাধারণত সিপিইউ সকলে জেনে থাকে। একটি মাদারবোর্ড এ সাধারণত যে সকল উপাদান বা কম্পনেন্ট গুলি থাকে তাদের মধ্যে এটি প্রধান। 

    হয়তো নাম শুনেছেন যে কোর টু ডুয়ো, ইন্তেল i3, ইন্তেল i5, বা এমডি রেডন a5 ইত্যাদি আসলে এগুলি প্রসেসর বা CPU। মাদারবোর্ড এর প্রসেসর এই ভিডিওগুলি লাগাতে হয়।

    সমস্ত ধরনের সিপিউ বলি সমস্ত মাদারবোর্ড সাপোর্ট করে না এর জন্য একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ মাপ থাকে এগুলোর উপর নির্ভর করে কোন মাদারবোর্ড সিপিইউ লাগাতে হয়। একটি মাদারবোর্ডে সাধারনত যা যা থাকে তার মধ্যে এটি একটি অন্যতম প্রধান অংশ।


RAM Slots :   একটি মাদারবোর্ডে যা যা থাকে তার মধ্যে অন্যতম একটি প্রয়োজনীয় উপাদান হলো RAM। RAM নেক্টর এর সঙ্গে যুক্ত হয় তাকে বলে RAM Slots। সাধারণত একটু উন্নত মানের মাদারবোর্ডে RAM Slots থাকে দুটি।

    অর্থাৎ আপনি আপনার সিপিইউ প্রসেসর অনুযায়ী RAM কে বাড়াতে বা কমাতে পারেন এই কারণে দুটি RAM Slots দেওয়া থাকে। এই Ram slots গুলিতেে আপনি আপনার প্রয়োজন অনুসারে DDR 2, DDR 3, এমনকি DDR 4, ব্যবহার করতে পারেন।

    আপনি যদি জানতে চান যে আপনার RAM Slots গুলি কোন ধরনের RAM কে সাপোর্ট করে তবে আপনাকে দেখতে হবে RAM SLOTS গুলির উপর কি লেখা আছে।

   যদি RAM Slots গুলির উপর 2.5 লেখা থাকে তবে বুঝতে হবে এখানে DDR 1 RAM ব্যবহার করা যাবে। আর যদি এখানে লেখা থাকে 1.8 তবে বুঝতে হবে এখানে DDR 2 RAM ব্যবহার করা যাবে।

    যদি RAM Slots গুলির উপর লেখা থাকে 1.5 তবে বুঝতে হবে এখানে DDR 3 র্যাম ব্যবহার করা যাবে। আর যদি RAM Slots গুলির উপর লেখা থাকে 1.2 তবে বুঝতে হবে এখানে আধুনিক প্রযুক্তির DDR 4  RAM ব্যবহার করা যাবে।


ATX Connector :   ATX Connector হল মাদারবোর্ড এর উপর থাকা কুড়ি পিন যুক্ত একটি কানেক্টর। যার মাধ্যমে SMPS থেকে আসা কারেন্ট মাদারবোর্ডে পৌঁছায়। অর্থাৎ মাদারবোর্ড অন হতে গেলে যে কারেন্ট সাপ্লাই প্রয়োজন হয় তা এই এটিএক্স কানেক্টর পিন এর মাধ্যমে পৌঁছায়।

    Atx কানেক্টরে ভোল্টেজ গুলি ভাগ ভাগ করে দেওয়া থাকে যেমন সর্বোচ্চ এখানে 12 ভোল্ট যুক্ত থাকে আবার কোন পিন দ্বারা এখানে - 5 ভোল্ট পর্যন্ত কারেন্ট বেরোতে পারে। এমনকি এই কুড়ি টিফিন যুক্ত কানেক্টরের দিয়ে 3.3 ভল্ট ফাইভ ভোল্ট ইত্যাদিও বেরোতে সক্ষম।

    
IDE Connector :   IDE Connector মাদারবোর্ড এর উপর যুক্ত করা থাকে যার নাম হল ইন্টিগ্রেটেড ডিভাইস ইলেকট্রনিক। এটি সাধারণত 14 পিন যুক্ত একটি কানেক্টর। 

    IDE connector এর মাধ্যমে কম্পিউটারের মধ্যে থাকা বিভিন্ন ইন্টিগ্রেটেড যন্ত্রাংশ কে যুক্ত করা হয়। আইডি কানেক্টর এর মাধ্যমে হার্ডডিক্স ডিভিডি ড্রাইভ ইত্যাদিকে যুক্ত করা হয়।

    অর্থাৎ কম্পিউটারের মধ্যে থাকা অপটিক্যাল ডিভাইস গুলোকে এই আইডি কানেক্টর দ্বারা যুক্ত করা হয় এবং তাদের থেকে বার্তা নেওয়া বাদ দেওয়া কাজগুলো এই কানেক্টর এর মাধ্যমে হয়ে থাকে।

    তবে বর্তমানে কিছু উন্নত প্রযুক্তির মাদারবোর্ডে এই আইডি কানেক্টর গুলি দেখতে পাওয়া যায় না। এদের বলে এর থেকে ছোট পিন যুক্ত সাটা / sata পিন দেখতে পাওয়া যায়। যদিও আমরা ছাটা পিন কানেক্টর সম্পর্কে পরে আলোচনা করব।


AGP Connector :    আমরা জানি যে কম্পিউটারে গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করা হয়।সাধারণত কম্পিউটারের প্রসেসর বা মোবাইলের প্রসেসর এর মধ্যে কোম্পানি গ্রাফিক্স ব্যবহার করে।কিন্তু সেই গ্রাফিক্স খুব উন্নত মানের হয় না বা তা দ্বারা কিছু হাই প্রযুক্তির কাজগুলো করা সম্ভব হয় না।

   এই কারণে আমাদের প্রয়োজন হয় একটা এক্সটার্নাল গ্রাফিক্স কার্ডের। আর এই এক্সটারনাল গ্রাফিক্স কার্ড কে যুক্ত করতে গেলে প্রয়োজন হয় এই AGP Connector এর।

    AGP Connector এর সম্পূর্ণ নাম এক্সেলেটর গ্রাফিক পোর্ট। এই পোর্ট বা কানেক্টরটি মাদারবোর্ড এর সঙ্গে ব্যবহার করা হয় অতিরিক্ত গ্রাফিক্স কার্ড কে ব্যবহার করার জন্য।


PCI Slots :  যে কোন মাদারবোর্ড এ কয়েকটি এক্সট্রা পিসিআই স্লট বা পিসিআই কানেক্টর দেওয়া থাকে কারণ কিছু উন্নত প্রযুক্তির কাজ যে সমস্ত মাদারবোর্ড এর দ্বারা সম্ভব হয় সেগুলিতে কিছু এক্সটার্নাল ডিভাইস ব্যবহার করার জন্য এ ধরনের পিসিআই স্লট দেওয়া থাকে।

    এই সকল পিসিআই স্লট এর মাধ্যমে অডিও কার্ড ল্যান কার্ড এমনকি অতিরিক্ত উন্নত মানের গ্রাফিক্স কার্ড গুলিও যুক্ত করা যায়। এছাড়াও যদি কখনো আমাদের মাদারবোর্ডের অডিও আউটপুট খারাপ হয় তখন আমরা অডিও কার্ড লাগিয়ে তা ঠিক করতে পারি।

    এই সকল এক্সট্রা কাজগুলি করার জন্য এই ধরনের কিছু পিসিআই স্লট দেওয়া থাকে যার মাধ্যমে কোন সমস্যা হলেও তা ঠিক করে নেওয়া সম্ভব হয় এক্সট্রা কার্ড লাগিয়ে। PCI এর সম্পূর্ণ নাম হল পেরিফেরাল কম্পোনেন্ট ইন্টারকানেক্ট।


South Bridge :   একটি মাদারবোর্ডের বিভিন্ন উপাদানের মধ্যে যতগুলি কম্পোনেন্ট আমরা দেখতে পাই তার মধ্যে অধিকাংশ চিপস।এই সকল চিপস গুলির মধ্যে দুটি চিপস সবথেকে বেশি উল্লেখযোগ্য এবং কার্যকরী তা হলো সাউথ ব্রিজ চিপস এবং নর্থব্রিজ চিপস।

    বিভিন্ন ধরনের পিসিআই স্লট অডিও কানেক্টর সাটা কানেক্টর ইত্যাদি এগুলো কে নিয়ন্ত্রণ করে এই সাউথ ব্রিজ চিপস। CMOS ব্যাটারি বায়োস কন্ট্রোল, আইডি কানেক্টর ইন সবগুলি নিয়ন্ত্রিত হয় সাউথ ব্রিজ দ্বারা।


CMOS Battery :   আমরা যদি কখনো কম্পিউটারের মাদারবোর্ড কে লক্ষ্য করি তখন দেখবো সমস্ত মাদারবোর্ডের মধ্যে একটি ছোট পাতলা ধরনের ব্যাটারি লাগানো থাকে একে আমরা সিমোস / CMOS ব্যাটারি বলে থাকি।

   CMOS এর সম্পূর্ণ নাম কম্প্লিমেন্টারি অক্সি সেমিকন্ডাক্টর। এই ব্যাটারিটি কম্পিউটারের মধ্যে ডেট ও টাইম কে সঠিকভাবে ধরে রাখতে সাহায্য করে। সিমোস তার ভোল্টেজ দিয়ে নয় চিপকে সক্রিয় করে তোলে এবং সাউথ ব্রিজ RTC ক্রিস্টাল এর মাধ্যমে সমস্ত কম্পিউটারের মধ্যে তার ডেট ও টাইম কে সঠিক রাখতে সাহায্য।


IOIC :   আমার মতে একটি কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে যতগুলি কম্পনেন্ট থাকে বা উপাদান থাকে তাদের মধ্যে এই IOIC টিপসটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই চিঠির মধ্য দিয়ে কোন কম্পিউটার অন বা অফ হতে পারে।

    অর্থাৎ কোন মাদারবোর্ড এ কারেন্ট পৌঁছাতে হলে অন হতে হলে এই IOIC চিপস এর মাধ্যমে তা সম্ভব হয়। এটি  ফ্রন্ট প্যানেল দ্বারা যুক্ত থাকে। এবং ফ্রন্ট প্যানেল টিকে এই আইসি টির মাধ্যমে কাজ করানো হয়।


CLOCK IC :   আমরা জানি একটি কম্পিউটারের সিপিইউ এবং তার সমস্ত হার্ডওয়ার গুলি ক্লক স্পিড এ চলতে সক্ষম। এই কারণে মাদারবোর্ডের ভিতর এই ক্লক আইসিটি সিপিউ কে সংকেত এবং চলতে সাহায্য করে।

     এই ক্লক আইসি তারবার্তা সিপিইউ অর্থাৎ প্রসেসর, সাউথ ব্রিজ, ও RAM কে পাঠিয়ে কাজ করতে সাহায্য করে।


North Bridge :   মাদারবোর্ডে যে সমস্ত উপাদানগুলি থাকে তার মধ্যে দুটি চিপস খুব গুরুত্বপূর্ণ আগেই বলেছি একটি সাউথ ব্রিজ অন্যটি নর্থব্রিজ।

    সাউথ ব্রিজ চিপটি গ্রাফিক্সের সঙ্গে অনেকটা সম্পর্কিত কিন্তু নর্থব্রিজ চিপ সিটি সিপিইউ এর সঙ্গে যুক্ত। নর্থ কে বলা হয় GMCH, এটি RAM SLOTS, VGA SLOTS, ও PCI EXPRESS এর সঙ্গে যুক্ত থাকে।



মাদারবোর্ডের বিভিন্ন আউটপুট কানেক্টর :  একটি মাদারবোর্ড এ সাধারণত যে সমস্ত উপাদানগুলি থাকে সেগুলিকে যদি আমরা দুটি ভাগে ভাগ করি তার একটি হল ইন্টারনাল আরেকটি হল আউটপুট।

    অর্থাৎ একটি কম্পিউটারের মধ্যে মাদারবোর্ডের সঙ্গে যুক্ত উপাদানগুলির কিছু কম্পনেন্ট থাকে সিপিইউ বক্সের মধ্যে আর কিছু থাকে বাইরে যেগুলিকে মাদারবোর্ডের বিভিন্ন কানেক্টর এর সঙ্গে যুক্ত করে ব্যবহার করতে হয়।

    এগুলি যেমন ইউএসবি পোর্ট যার পুরো নাম ইউনিভার্সাল সিরিয়াল বাস। যদিও আগেকার দিনের মাদারবোর্ড গুলিতে ইউএসবি পোর্টের মাধ্যমে শুধুমাত্র ডেটা ট্রান্সফারের কাজ করা হতো কিন্তু বর্তমানে ইউএসবি পোর্ট কে কাজে লাগিয়ে প্রিন্টার মনিটর কিবোর্ড মাউস ইত্যাদিকে যুক্ত করা হয়।

    এরপর মাদারবোর্ডে আউটপুট কানেক্টর এর জন্য তাকে VGA কানেক্টর, VGAকানেক্টর এর মাধ্যমে আমরা মাদারবোর্ড এর সঙ্গে আমাদের মনিটরকে যুক্ত করতে পারি।

    যদিও বর্তমান দিনে এই VGA কানেক্টরকে খুব কম দেখা যায় এর জায়গাতে এসেছে নতুন এইচ ডি এম আই পোর্ট। এই HDMI পোর্টের মাধ্যমে উন্নত কোয়ালিটির গ্রাফিক্স কে সরাসরি আমরা মনিটরে দেখতে পারি। 

    এছাড়া আউটপুট কালেক্টর গুলির মধ্যে একটি এসএমপিএস এর জন্য 230 ভোল্ট যুক্ত কানেক্টর থাকে যার মাধ্যমে ইলেকট্রিক বাইরে থেকে এসএমপিএস এ প্রবেশ করানো হয়।

     অডিও কানেক্টর কম্পিউটারের মাদারবোর্ড এর একটি অন্যতম উপাদান যার মাধ্যমে আমরা মাদারবোর্ড থেকে সহজেই কোন অডিওতে লাইন দিয়ে অডিও শুনতে পারি।

    আগেকার দিনের মাদারবোর্ড গুলিতে একটি 25 পিন যুক্ত কানেক্টর থাকত যার মাধ্যমে সরাসরি কিছু উন্নত মানের গেমিং কনসোল কে যুক্ত করে কম্পিউটারের মনিটরে গেম খেলা যেত যদিও এগুলি এখন আর বেশি ব্যবহার করা হয় না।

    মাদারবোর্ডের আউটপুট কানেক্টর গুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ল্যান্ড পোর্ট। LAN হল লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক অর্থাৎ ETHER কেবিল কে যুক্ত করে কম্পিউটারে ইন্টারনেট পরিষেবা পেতে পারি।


  • একটি কম্পিউটারের মাদারবোর্ডে সাধারণত যে সমস্ত উপাদানগুলি থেকে থাকে তার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ গুলি নিয়ে আমি উপর থেকে এই পর্যন্ত আলোচনা করেছি। হতে পারে এর মধ্যে আমি বেশ কয়েকটি বাদ দিয়েছি যে গুলি সম্পর্কে আপনার জানার প্রবল আগ্রহ ছিল। যদি এমন হয়ে থাকে অবশ্যই নিচে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন আমি এখানে ইনপুট করে দেব।
  • তবুও বলি একটি মাদারবোর্ড সম্পর্কে যে বিষয়গুলি বা যে উপাদান গুলি সম্পর্কে আমাদের সর্বপ্রথম জানা উচিত আমি সেগুলো সম্পর্কে এখানে আলোচনা করেছি।



মাদারবোর্ড এর বিভিন্ন উপাদান গুলি কিভাবে কাজ করে


    আমরা এতক্ষন মাদারবোর্ডের সাধারণত যে বিষয়গুলি দেখতে পাই সেগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি কিন্তু এগুলিকে কারো সঙ্গে কিভাবে যুক্ত হয়ে কাজ করে সেগুলো কিন্তু আমরা এখনো বুঝতে পারিনি।

    তাহলে চলুন আমরা দেখে নিই কিভাবে এই উপাদানগুলি একে অপরের সঙ্গে যুক্ত হয় তা একটি কম্পিউটার বা একটি ইলেকট্রিক্যাল ডিভাইস কে চলতে সাহায্য করে।
Motherboard কি | মাদারবোর্ড এ সাধারণত কি কি থাকে | মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ | মাদারবোর্ডের দাম

    প্রথমত বলি সিপিইউ যা কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের প্রাণকেন্দ্র VRM, ক্লক IC, সাউথ ব্রিজ চিপস, RTC ক্রিস্টাল, নর্থ ব্রিজ চিপস, এবং IO IC এর সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থাকে।

    আবার IOIC টি সরাসরি ফ্রন্ট প্যানেল, ও COM PORT, PLT PORT, PS/2 PORT, এবং FDD এর সঙ্গে সরাসরি যুক্ত থাকে।

    আবার COMS ব্যাটারিটি সাউথ ব্রিজ এর সঙ্গে এবং আইওসির সঙ্গে যুক্ত হওয়া বায়োস এর মাধ্যমে ল্যান্ড পোর্ট অডিও পোর্ট ও PCI SLOTS এর সঙ্গে যুক্ত থাকে। এরমধ্যে সাউথ ব্রিজ চিপস আবার আরটিসি ক্রিস্টাল এর সঙ্গে যুক্ত থাকে ডেট ও টাইম ঠিক রাখার জন্য।

    এবার আসি নর্থব্রিজ চিপস নর্থ বৃষ্টি আসলে ভিজিএস লোট সিপিইউ, RAM SLOTS, সাথে 14.318 মেগা হর্সের কৃষ্টাল ও PCI-EXPRESS এর সঙ্গে যুক্ত থাকে।


     অর্থাৎ আমরা যদি এই গঠনটি সম্পূর্ণভাবে বোঝার চেষ্টা করি তাহলে দেখব যে মাদারবোর্ড এর সমস্ত কোম্পানির গুলি একে অপরের সঙ্গে যুক্ত অবস্থায় থাকে। এবং সিপিইউ মূলত সরাসরি চারটি জিনিসের সঙ্গে যুক্ত থাকে তারা হল নর্থব্রিজ চিপস সাউথ ব্রিজ চিপস এবং IO IC এর সাথে।



মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ 


      এতক্ষণ আমরা মাদারবোর্ড কি এবং মাদারবোর্ডের সাধারণত কি কি থাকে তা নিয়ে জেনেছি এবং এই বিস্তারিত আলোচনার মধ্যে যদি কোন বিষয় থেকে যায় অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন আমি চেষ্টা করব সেটা আবার বোঝানোর।

     এবার যে জিনিসটা আমরা জানি না এমন একটি বিষয় যে মাদারবোর্ড কত প্রকার বা মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ গুলি কি কি।যদিও মার্কেটে অনেক ধরনের মাদারবোর্ড দেখতে পাওয়া যায় কিন্তু সাধারণত কম্পিউটারের ক্ষেত্রে তিন প্রকার মাদারবোর্ড আমরা দেখতে পাই।

    এই কম্পিউটারের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হওয়া মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ গুলি সম্পর্কে নিচে আলোচনা করলাম


MINI ATX MOTHERBOARD :

      কম্পিউটারের জন্য পাওয়া সব থেকে ছোট মাদারবোর্ডটি হলো মিনি এটি এক্স মাদার্বোর্ড। এটি আসলে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি করা যার মাধ্যমে 17 ইঞ্চি × 17 ইঞ্চি মাপের এই মাদারবোর্ডটি যথেষ্ট শক্তিশালী।

     এই মাদারবোর্ড এর উপর অন্য সকল মাদারবোর্ড এর মত সিপিইউ স্লট, RAM SLOTS দেখতে পাওয়া যায়, কিন্তু অন্যান্য চিপস গুলি এখানে ইন্টিগ্রেটেড করে একসঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে বলে তা কম পরিমাণে দেখা যায়।

    এই এটিএক্স মিনি মাদার্বোর্ড এ দুটি RAM SLOTS ব্যবহার করা যায় যা 16GB এবং 16 জিবি পর্যন্ত সাপোর্ট করতে সক্ষম। কিন্তু এই মিনি এটিএম মাদারবোর্ডের সমস্যা হলো এখানে অতিরিক্ত পিসিআই কেবিল ব্যবহার করা সম্ভব নয়।

    অর্থাৎ আপনি এখানে অতিরিক্ত একটি মাত্র কার্ড ব্যবহার করতে পারেন সেটি হতে পারে একটি মাত্র গ্রাফিক্স কার্ড বা একটিমাত্র অডিও কার্ড। বাজারে বা অনলাইনে সাধারণত আপনি এই মিনি এটিএক্স মাদারবোর্ড গুলি 4 থেকে 10 হাজার টাকার মধ্যে কিনতে পারেন।


MICRO ATX MOTHERBOARD : 

     মাইক্রো এটিএক্স মাদারবোর্ড মিনি এটিএক্স মাদারবোর্ড থেকে একটু বড়। এই ধরনের মাদারবোর্ড গুলি 24 ইঞ্চি × 24 ইঞ্চি যুক্ত হয়ে থাকে। 

    মিনি এটিএক্স মাদারবোর্ড এর মত এটিতে সংক্ষিপ্তভাবে কোন পিসিআই স্লট দেওয়া থাকে না, আপনি এখানে প্রয়োজন অনুসারে একাধিক পিসিআই স্লট ব্যবহার করতে পারেন।

    সুতরাং এখানে আপনি মিনি এটিএক্স মাদারবোর্ডের থেকে যথেষ্ট বেশি পরিমাণ সুবিধা পাবেন। প্রয়োজনে এখানে আপনি দুটি গ্রাফিক্স কার্ড ও ল্যান কার্ড অডিও কার্ড ইত্যাদি লাগাতে পারেন।



STANDARD ATX MOTHERBOARD :

     সবথেকে জনপ্রিয় ও বেশি ব্যবহারযোগ্য মাদারবোর্ড হল স্টান্ডার এটিএক্স মাদার্বোর্ড।কারণ এই মাদারবোর্ডে সবথেকে বেশি পরিমাণ ব্যবহারযোগ্য এবং এফিশিয়েন্সি যুক্ত টেকনোলজি থাকে।

    এখানে উচ্চ মাত্রা সম্পন্ন RAM ব্যবহারকরার সুবিধা পাওয়া যায় এবং সাথে সাথে একাধিক PCI SLOTS ও গ্রাফিক্স কার্ড দেখতে পাওয়া যায়। সাধারণত সাইজে এগুলি 35 ইঞ্চি × 35 ইঞ্চি বড় হয়ে থাকে।

    সাধারণত যে সমস্ত গেমিং পিসি গুলি তৈরি হয় তা এই ধরনের স্টান্ডার এটিএক্স মাদারবোর্ড এর উপর নির্ভর করে গঠন হয় কেননা স্টান্ডার এটিএস মাদারবোর্ডে আমরা বেশি পরিমাণ সুবিধা পায় এবং যথেষ্ট বেশি পরিমাণ গ্রাফিক্স লাগাতে পারি।


  • দেখুন এখানে বাজারে যে কয়টি ধরনের মাদারবোর্ড চলে আমি সেই মাদারবোর্ড এর প্রকারভেদ গুলি সম্পর্কে আলোচনা করেছি কিন্তু মাদারবোর্ড গুলির অন্যভাবেও ভাগ করা যায় যেমন মাদারবোর্ড গুলির সিরিজ অনুযায়ী টাইপস অনুযায়ী ইত্যাদি।আমি শুধু আপনাদের সাধারণ বিষয়টি জানানোর জন্য সহজ সরল করে এই তিন ভাবে আলোচনা করলাম।


মাদারবোর্ডের দাম 


      মাদারবোর্ড গুলির দাম সাধারণত তাদের গঠন এবং পারফরমেন্সের উপর ভিত্তি করে হয় সুতরাং আপনি কি ধরনের মাদারবোর্ড কিনতে চাইছেন সেটি আপনাকে আগে পছন্দ করতে হবে।

     যদি আপনি সাধারণ কাজের জন্য মাদারবোর্ড চান তাহলে তার জন্য আলাদা এবং নরমাল মাদারবোর্ড হলে কাজ চালাতে পারবেন কিন্তু যদি মনে করেন যে আপনি একটি উন্নত বা অ্যান্ড টেকনোলজির জন্য মাদারবোর্ড কিনতে চান তাহলে তার জন্য আপনাকে যথেষ্ট বেশি পরিমাণ টাকা দিয়ে মাদারবোর্ড কিনতে হবে।

    সাধারণত মাদারবোর্ড গুলির দাম 3000 থেকে শুরু করে কয়েক লাখ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। 3000 টাকা থেকে শুরু করে যেসকল মাদারবোর্ড গুলি আমরা অনলাইন থেকে বা বাজার থেকে কিনতে পারি সেগুলি সাধারণ মানের মাদার্বোর্ড।

    সেই সকল মাদারবোর্ড গুলিতে উন্নত প্রযুক্তির প্রসেসর বা সিপিইউ আমরা ব্যবহার করতে পারব না। প্রয়োজনে আমাদের RAM কে বাড়াতে পারব না। প্রয়োজনে আমরা আমাদের গ্রাফিক্সকে বাড়াতে পারব না কারণ এই সকল মাদারবোর্ডের একটা লিমিটেশন থাকে।

    কিন্তু যদি আমরা একটু মিডিল রেঞ্জের মাদারবোর্ড ক্রয় করি অর্থাৎ 10 হাজার টাকার আশেপাশে তবে সেখানে আমরা অনেক সুবিধাযুক্ত মাদারবোর্ড পেয়ে যাব।

    যদি আপনারা আমার পছন্দ করা মাদারবোর্ড কিনতে চান দেখতে চান তবে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করবেন আমি এরপর এখানে আপডেট করে বিভিন্ন রকমের 3000 টাকা থেকে শুরু করে কুড়ি হাজার টাকা পর্যন্ত মাদারবোর্ড গুলি এবং তাদের সম্পর্কে সব তথ্য দিয়ে দেব।



আমার মতামত :  আমি লেখাটিই শুরুর প্রথমেই বলেছিলাম যে মাদারবোর্ড কি এ সম্পর্কে আমরা সবাই জানি কিন্তু মাদারবোর্ডের বিভিন্ন বিষয় বা ছোট ছোট বিষয়গুলি সম্পর্কে আমাদের তেমন কোন ধারণা নেই।

     এমন অনেক বিষয় আছে মাদারবোর্ড গুলির ছোট ছোট আর্টিকেল যা অত্যন্ত জরুরী যেগুলো সম্পর্কে হয়তো আমরা অনেকেই জানিনা। আমার আলোচনা করা মাদারবোর্ড কি এবং মাদারবোর্ড এর বিভিন্ন উপাদান মাদারবোর্ডের সাধারণত কি কি থাকে যে বিষয়গুলি আমি আলোচনা করেছি তা হয়তো আপনাদের ভালো লাগবে ও আপনাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হবে।

    যদি ভালো লাগে তবে অবশ্যই শেয়ার করবেন আর যদি আরো কিছু তথ্য জানার থাকে নিজে অবশ্যই কমেন্ট করবেন ধন্যবাদ।