Domain Authority কি ? আপনার Website এর Domain Authority কিভাবে বাড়াবেন।

     আমরা যারা বর্তমানে ব্লগার বা ব্লগিং এর সঙ্গে যুক্ত তাদের সবারই একটা চিন্তা থাকে যে কিভাবে গুগল সার্চ ইঞ্জিনে প্রথম দিকে উঠে আসা যায়। এই সকল সার্চ ইঞ্জিনের অনেকগুলি অ্যালগরিদম আছে যেগুলোকে আমরা SEO বলে থাকি। এই SEO এরমধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল Domain Authority ( DA )

    যদি আপনি একজন ব্লগার হয়ে থাকেন বা আপনার একটি ওয়েবসাইট থাকে তবে অবশ্যই আপনি ব্লগিং করতে গিয়ে Domain Authority বা DA কথাটি অনেকবার শুনে থাকবেন। 
Domain Authority কি ? আপনার Website এর Domain Authority কিভাবে বাড়াবেন।

    যখন আপনি ওয়েবসাইট বা কোন ব্লগে একটি আর্টিকেল লিখতে যাবেন ঠিক তখন আপনাকে কিওয়ার্ড নিয়ে রিসার্চ করতে হয়।আর এই কী-ওয়ার্ড নিয়ে রিসার্চ করতে গিয়ে অনেকবার দেখে থাকবেন সেখানে আপনার কম্পিটিটর ওয়েবসাইটগুলি আপনার থেকে কখনো বেশি DA বা Domain Authority নিয়ে অবস্থান করছে।

    আমরা কয়েকবার এটাও শুনেছি যে যে সকল ওয়েবসাইট বা ব্লগের Domain Authority বেশি তারা সার্চ ইঞ্জিনে সামনের দিকে অবস্থান করে। এমনকি কয়েকটি নামিদামি ওয়েবসাইটের Domain Authority প্রায় সকল সময় বেশি হয়ে থাকে।

    এইজন্যে সেই সকল কিছু ওয়েবসাইট যাদের Domain Authority বেশি তারা খুব সহজেই একটি আর্টিকেল কে লিখে পাবলিস্ট করলে তা সার্চ ইঞ্জিনে Rank করতে পারে।

    এই সকল কারণে একটি ওয়েবসাইটের DA বা Domain Authority খুব গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়। কিন্তু এই Domain Authority নিয়ে আমাদের মধ্যে তেমন কোনো পরিষ্কার ধারণা নেই। 

    আজ আমরা এই আর্টিকেলে Domain Authority বা DA নিয়ে আলোচনা করব এবং যার মাধ্যমে বুঝে নেব Domain Authority বিষয়টিকে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে কিভাবে বাড়াতে পারব।

    কারণ যদি আমাদের ওয়েবসাইটের Domain Authority বা DA কে ভারতের পারি তবে আমাদের ওয়েবসাইট বা আর্টিকেলটি খুব সহজে যেকোন সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম দিকে অবস্থান করতে সক্ষম হবে।

 

Domain Authority কি ?


    Domain Authority হলো এক ধরনের গ্রেডিং সিস্টেম। Domain Authority কে SEO কিছু ওয়েবসাইট তারা এই গ্রেডিং সিস্টেম এর মাধ্যমে প্রকাশ করে।

    Domain Authority কে 0 থেকে 100 পর্যন্ত গ্রেড স্কেল ভাগ করা হয়। Domain Authority কে আমরা কখনো কখনো DR বা WA ভুলেও দেখে থাকি। DR হল Domain Rating, আর WA হল Website Authority। 

    তাহলে কোন ওয়েবসাইটের DA, DR বা WA একই বিষয়ে। কিন্তু কিছু কিছু SEO কোম্পানি এগুলোকে তাদের মতো করে ব্যবহার করে। কিছু কিছু এসইও কোম্পানি গুলি হল - Ahref, MOZ, Semrush ইত্যাদি। আর এই সকল কোম্পানি Domain Authority কে তাদের মতো করে কখনো DA, বা WA বলে প্রকাশ করে।

    DA একটি ওয়েবসাইটের সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এইজন্য আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority যত বেশি হবে তত সার্চ বেজে উঠে আসার সুযোগ বৃদ্ধি পাবে এবং তত বেশি ভিজিটর গ্রহণ করতে পারবে।
Domain Authority কি ? আপনার Website এর Domain Authority কিভাবে বাড়াবেন।

    একটি উদাহরণ দিয়ে আমি বলতে পারি যে সবথেকে প্রচলিত উইকিপিডিয়া ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি 100, এই কারণে কোনো কিছু  সার্চ করলে সবচেয়ে প্রথমে এই উইকিপিডিয়ার ওয়েবসাইটটি অবস্থান করে।

    প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের আলাদা আলাদা Domain Authority হয়ে থাকে। যারা নতুন করে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করে তাদের Domain Authority খুব কম থাকে। কয়েক মাস কাজ করার পর Domain Authority ১০-২০ হতে পারে।

   মনে করা হয় একটি ওয়েবসাইটের Domain Authority যত বেশি হবে সেই ওয়েবসাইট তত বেশি অর্গানিক ট্রাফিক গ্রহণ করতে সক্ষম হবে। আপনি কি জানেন আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority কত। এবং কি করে এই DA চেক করতে হয় তা যদি না জানেন তাহলে চলুন দেখে নিই।



Domain Authority কিভাবে চেক করব ? 


    Domain Authority কে cheek করার জন্য ইন্টারনেটে অনেকগুলি টুলস আছে। যে সমস্ত টুলস গুলির যেকোনো একটিকে ব্যবহার করে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority কত তা চেক করে নিতে পারেন। 

    কয়েকটি Domain Authority চেক করার জন্য তুলসী নাম আমি আগেই বলেছি। যদিও এগুলি সবই আমাদের কিনে তারপর ব্যবহার করতে হয়, কিন্তু এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলোতে আমরা বিনামূল্যে আমাদের ওয়েবসাইটের Domain Authority চেক করে জানতে পারি।

    এরকম একটি Domain Authority কে চেক করার ওয়েবসাইট হল small SEO tools। এই ফ্রি ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের সবকিছু জানতে পারবেন।

    এত সময় তো বললাম যে একটি ওয়েবসাইটের Domain Authority কে কোথায় আমরা দেখতে পাবো। কিন্তু এই সকল ওয়েবসাইট এর উপর গেলে কিভাবে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের Domain Authority কে চেক করতে পারব।

    প্রথমে এই সকল টুলস বা ওয়েবসাইটের যেকোন একটিতে গিয়ে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের URL দিতে হবে । তারপর নিচে চেক অপশনে ক্লিক করলে আপনাকে দেখিয়ে দেবে যে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি কত।

    যদিও এখানে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে যেকোনো ওয়েবসাইটের এই Domain Authority বিষয়টি ওঠানামা করে। অর্থাৎ কখনো কোন ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বেশি থাকে আবার কখনও কমে যায়।

    তবে সমস্ত ব্লগার'দের একটি লক্ষ্য থাকে এই ডোমেইন অথরিটিকে কি করে বাড়িয়ে তোলা যায় সেটা নিয়ে। কারণ ডোমেইন অথরিটি বললে যে কোন আর্টিকেল এর অথরিটি বা পেজ অথরিটি বৃদ্ধি পায়

    এবং পেজ অথরিটি বৃদ্ধি পেলে যে কোন সার্চ ইঞ্জিন সেই সকল ডোমেইন যুক্ত পেজ গুলি কে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। আর যখনই এই সকল পেজগুলি অন্য পেজের থেকে বেশি গুরুত্ব পায় তখনই তা সার্চ রেজাল্টের প্রথম দিকে অবস্থান করে।

   যেকোনো ওয়েবসাইটের Domain Authority কে দেখার বা চেক করার জন্য এটি সবচেয়ে সহজতম মাধ্যম। আপনি গুগল এ গিয়ে যদি সার্চ করেন ওয়েবসাইট ডোমেইন অথরিটি চেকিং তবে আপনাকে সামনে অনেকগুলি ওয়েবসাইট বা টুলস ওপেন হবে।

    সেগুলোর ভিতরে আপনি এক এক করে চেক করে দেখতে পারেন যে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি কত। সুতরাং আমি এখানে আপনাদের সহজভাবে কি করে ডোমেইন অথরিটি চেক করতে হয় তা জানালাম।

    তবে একটা কথা মাথায় রাখতে হবে আপনি যদি একটি ফ্রী টুল ব্যবহার করেন সেক্ষেত্রে আপনার ওয়েব সাইট সম্পর্কিত বা ওয়েবসাইটের Domain Authority কে ভুলভাল দেখাতে পারে। সুতরাং ডোমেইন অথরিটি কে দেখতে গেলে সব সময় একটি পেইড টুলস ব্যবহার করা উচিত। 

    এবার যে বিষয়টি আমাদের কাছে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ তা হলো এই ডোমেইন অথরিটি বিষয়টি যদি আমাদের ওয়েবসাইটে কম থাকে তবে আমাদের ওয়েবসাইট খুব তাড়াতাড়ি সার্চ রেজাল্টের উপরের দিকে অবস্থান করবে না।

    কিন্তু কি করে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের Domain Authority কে বাড়াবো এই বিষয়টি আমাদের অনেকেরই জানা নেই। সেই কারণে আমি আজ এখানে যেকোন ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটিকে বাড়ানোর সম্ভাব্য কয়েকটি পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করব। 

   চলুন তাহলে দেখে নি আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটিকে কি করে বাড়াতে পারবেন।


Website এর Domain Authority কিভাবে বাড়াবো ? 


     প্রথম কথা হল এই ডোমেইন অথরিটি ছাড়া আমাদের ওয়েবসাইট খুব ভালো Rank করবেনা এই বিষয়টি আমরা এতক্ষন বুঝেছি। কিন্তু কি করে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের Domain Authority বাড়াবো এই বিষয় নিয়ে তেমন কোন স্বচ্ছ ধারণা নেই।

   একটি ওয়েবসাইটের Domain Authority বিষয়টি কি করে বাড়ে এ নিয়ে কারোরই কোনো ধারণা নেই। হয়তো শুনতে খারাপ লাগবে কিন্তু এটাই সত্য কেউ জানে না কিভাবে আসলে আমাদের ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বৃদ্ধি পায়। কিন্তু কিছু এসইও টুলস কে লক্ষ্য করলে আমরা যে বিষয়গুলো বুঝতে পারি সেগুলির মাধ্যমে ডোমেইন অথরিটি বাড়ানো সম্ভব।

    একটি ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বাড়ানো এর মানে হল সার্চ ইঞ্জিনে উপর দিকে উঠে আসা। আর Domain Authority বাড়ানোর জন্য সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য মাধ্যম যেটি সেটি হল link building । 

    লিংক বিল্ডিং বিষয়টি হলো আপনার ওয়েবসাইটের সঙ্গে অন্য ওয়েবসাইটকে আপনার ডোমেইন বা ইউ আর এল দ্বারা যুক্ত করা। যখন আপনার ওয়েবসাইটে অন্য বড় কোনো ওয়েবসাইট বা বেশি ডোমেইন অথরিটি যুক্ত ওয়েবসাইট থেকে একটি লিংক আসে তখন আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority বৃদ্ধি পায়।

    শুধুমাত্র এই কারণে একজন ব্লগার এর অন্যতম ধ্যান-ধারণা থাকে যত বেশি পরিমাণ অন্য কোন ওয়েবসাইটের সঙ্গে লিংক বিল্ডিং করা যায়। এর ফলে ওয়েব সাইটের ব্যাকলিংক মজবুত হয় ও Domain Authority বৃদ্ধি পায়। 

     চলুন এখন দেখি নি এমন কয়েকটি পদ্ধতি বা মাধ্যম যার ফলে আমাদের ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বৃদ্ধি পেতে পারে। 


Link Building :   আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority কে বাড়ানোর জন্য যত সম্ভব লিঙ্কবিল্ডিং শুরু করুন। লিংক বিল্ডিং যাকে আমরা আরো সরল ভাবে বলতে পারি ব্যাক লিঙ্কিং। যত বেশি বাকলিনকিং করা হবে তত বেশি ডোমেইন অথরিটি বাড়বে।

   এই ডোমেইন অথরিটিকে বাড়াতে গেলে যদি আপনি লিঙ্ক বিল্ডিং করতে থাকেন তবে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে - যে ওয়েবসাইট থেকে আপনি লিঙ্কবিল্ডিং করছেন বা করবেন সেই ওয়েবসাইটটি যেন আপনার ওয়েবসাইটের বিষয়ের সঙ্গে মেলে।

    আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ যদি ফ্যাশন সম্পর্কে হয়ে থাকে আর আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের জন্য লিংক বিল্ডিং করেন টেকনোলজি সম্পর্কিত কোন ওয়েবসাইট থেকে তবে আপনার ওয়েবসাইটের Domain Authority কে বাড়ানোর জন্য তেমন কোন গুরুত্ব রাখবে না।

    আবার যে ওয়েবসাইট থেকে আপনি লিঙ্কবিল্ডিং করছেন সেই ওয়েবসাইটটির Domain Authority যেন ভালো মানের হয়। অর্থাৎ একটি কোয়ালিটি ওয়েবসাইট থেকে আপনি লিঙ্ক বিল্ডিং করবেন তাতে খুব তাড়াতাড়ি আপনার Domain Authority বাড়বে।


Interlinking :   ইন্টার লিংকিং এই বিষয়টি আমরা কোন ওয়েবসাইট কে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করার জন্য আলোচনা করেছিলাম। একটি ওয়েবসাইটকে এসইও করতে গেলে তাকে ভালভাবে প্রত্যেকটি বিষয় বা ক্যাটাগরির সঙ্গে লিংকিং করা প্রয়োজন।

    এই বিষয় নিয়ে আমি একটি আর্টিকেল লিখেছি Silo Structure কিভাবে করতে হয়। এখানে ক্লিক করে দেখতে পারেন। সাইলো স্ট্রাকচার আসলে এক ধরনের ইন্টারলকিং সিস্টেম। 

    বেশিরভাগ সার্চ ইঞ্জিন গুলি Silo স্ট্রাকচার কে গুরুত্ব দিয়ে দেখে কারণ এটি একটি হোয়াইট হ্যাট এসইও। এই কারণে সকল সার্চ ইঞ্জিন গুলি এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয়।

    একটি ওয়েবসাইটের Domain Authority কে ভারতে গেলে অবশ্যই প্রত্যেকটি পোস্ট বা আর্টিকেলে সঙ্গে অন্য পোস্ট বা আর্টিকেল গুলির লিংকিং করতে হবে। 

    এর ফলে যখন কোন ভিজিটর একটি আর্টিকেল পড়বে তখন পড়তে পড়তে অন্য একটি আর্টিকেল এ লিংকে ক্লিক করে গেলে তা সার্চ ইঞ্জিনের কাছে খুব গুরুত্ব পায় এই কারণে ওই ওয়েবসাইটের Domain Authority বৃদ্ধি পাবে।

    সুতরাং যত বেশি আর্টিকেল ও ওয়েবসাইটের মধ্যে ইন্টার লিংকিং করা যাবে ততবেশি ওয়েবসাইটের Domain Authority বাড়বে বলে মনে করা হয়


Commenting :   কমেন্টিং বিষয়টি সম্পর্কে আমরা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ক্ষেত্রে আলোচনা করেছিলাম। কোন আর্টিকেল বা ব্লগ পোস্ট কে গুগল সার্চ ইঞ্জিনে রেঙ্ক করাতে গেলে কমেন্টিং বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ।

     অর্থাৎ কমেন্টিং এর মাধ্যমে লিঙ্কবিল্ডিং সম্ভব, আর লিংক বিল্ডিং এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বৃদ্ধি পাবে। কিন্তু কমেন্ট করতে গেলে অবশ্যই মনে রাখতে হবে আপনার ওয়েবসাইটের সঙ্গে সম্পর্কিত ওয়েবসাইট বা বিষয়ে নিচে কমেন্ট করতে হবে। 

    কারণ বিষয় সম্পর্কিত বা নিস রিলেটেড ওয়েবসাইট থেকে যদি কোন লিংক যুক্ত করা হয় তবে সার্চ ইঞ্জিনে বেশি পরিমাণে গুরুত্ব পায়। এই কারণে কমেন্ট করার সময় অবশ্যই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

    এছাড়া বিভিন্ন রকম ফোরাম, যেমন quara.com ইত্যাদি ওয়েবসাইটে গিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সেখান থেকে লিংকিং করতে হবে। তবে এইরকম ভাবে লিংকিং করলে তা খুব তাড়াতাড়ি আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বাড়বে না।

    আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি কে বাড়াতে গেলে এইভাবে কন্টিনিউ কমেন্ট করতে হবে। তারপর ধীরে ধীরে আপনার ওয়েবসাইটের DA বাড়তে থাকবে।


Website Speed :   আপনি হয়তো দেখে থাকবেন কখনো কখনো এমন কোন ওয়েবসাইট আছে যেগুলি খুব শীঘ্রই আমাদের সামনে খুলে যাই। আর এমন কিছু ওয়েবসাইট আছে যেগুলি খুলতে অনেক সময় লাগে। 

     যে ওয়েব সাইটটি খুলতে বেশি সময় লাগে আশা করি আপনি সেই ওয়েবসাইটের উপর ভিজিট করবেন না। কেননা এই ওয়েবসাইটটি আপনার অনেক সময় কে নষ্ট করে। 

     এই বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিয়ে যেকোনো ওয়েবসাইটের DA বৃদ্ধি পায়। কারণ যে সকল ওয়েবসাইট গুলি খুলতে কম সময় লাগে সেগুলি সার্চ ইঞ্জিনের কাছে এবং ভিজিটরের কাছে বেশি গুরুত্ব পায়। আর বেশি গুরুত্ব পাওয়ার জন্য এই সকল ওয়েবসাইটগুলির ডোমেইন অথরিটি বাড়তে থাকে।

    সুতরাং একটি ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটিকে যদি বাড়াতে চান তবে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইট এর গঠন এর উপর আপনাকে মনোযোগী হতে হবে এবং চেষ্টা করতে হবে কত কম সময়ে ওয়েবসাইটটি দ্রুত লোড হতে সক্ষম। 


Social Media Sharing :   সোশ্যাল মিডিয়ার উপর আপনার ওয়েব সাইটের বিভিন্ন পোস্ট শেয়ার করলে তা দ্রুত পরিমানে ভিজিটর আনতে সক্ষম হয়। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া থেকে এইভাবে যে ট্রাফিক পাওয়া যায় তা ওয়েবসাইটের ব্র্যান্ডকে গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

    আমাদের ওয়েবসাইট কে রেঙ্ক করানোর পিছনে এই সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ এখান থেকে আমরা প্রচুর পরিমাণে রেফারেল ট্রাফিক পেয়ে থাকি। 

    শুধু তাই নয় সোশ্যাল মিডিয়া থেকে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের ফলোয়ার সংখ্যা বাড়াতে পারি। আর একবার ফলোয়ার সংখ্যা বাড়লে তা ধীরে ধীরে আমাদের ডোমেইন অথরিটিকে বাড়াতে সাহায্য করে।


Quality Content :   আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইটে কোন ভিজিটর কেন আসবে এটি আগে প্রথমে ভাবুন। কারণ তারা আসবে আপনি যে আর্টিকেল বা বিষয়টি লিখেছেন সেটি পড়ার জন্য। যেটি পড়ার জন্য ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে আসবে সেটি যদি উন্নত মানের না হয় তাহলে কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বাড়বে না।

    একটি ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি আমাদের বুঝিয়ে দেয় সেই ওয়েবসাইটটি কতখানি গুরুত্বপূর্ণ। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটে যদি তেমন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করা হয়ে থাকে যা দর্শক ভিজিটরের উপকারে আসবে তবেই দর্শক আপনার ওয়েবসাইটটিকে পছন্দ করবে।

    হঠাৎ আপনার কনটেন্ট যদি কোয়ালিটি সম্পন্ন হয়ে থাকে অবশ্যই দর্শক বা ভিজিটর গুরুত্ব দিয়ে সেটি পড়বে এবং যত সময় ধরে পড়বে তত ডোমেইন অথরিটি  বৃদ্ধি পাবে।


    সুতরাং অবশ্যই আপনাকে একটি কোয়ালিটি যুক্ত কনটেন্ট আলোচনা করতে হবে তা থেকে যেন আপনার ভিজিটর উপকৃত হয়। কারণ তারা উপকার পেলেই আপনাকে বা আপনার ওয়েবসাইটটিকে গুরুত্ব দেবে আর সাথে সাথে আপনার ওয়েবসাইটের অথরিটি বাড়বে।


Fix Broken Links :   আমাদের ওয়েবসাইটে এমন কিছু লিংক থাকে যেগুলি আমাদের রাঙ্ক করতে বাধা সৃষ্টি করে। বা এমন কিছু লিংক থাকে যেগুলি আমাদের ওয়েবসাইটে সঙ্গে বর্তমানে যুক্ত নেই। এই সকল ওয়েবসাইট কে আমরা ব্রোকেন লিঙ্ক বলি। 

    আপনার ওয়েবসাইট এর গুরুত্ব বা ডোমেইন অথরিটি বাড়াতে গেলে এই সকল ব্রোকেন লিঙ্ক গুলিকে প্রথমেই সরিয়ে ফেলতে হবে। ব্রোকেন লিঙ্ক গুলিকে চেক করার জন্য ইন্টারনেটে অনেক ব্রোকেন লিঙ্ক চেকার আছে যেগুলি থেকে আপনি আপনার আর্টিকেল এর ব্রোকেন লিঙ্ক চেক করতে পারেন।

     আপনার ওয়েবসাইটে বা আর্টিকেলে যত কম পরিমাণ ব্রোকেন লিংক থাকবে তত ওয়েবসাইট বেশি গুরুত্ব পাবে আর ওয়েবসাইট গুরুত্ব পাওয়া মানেই আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বৃদ্ধি পাবে।


Domain Age :   যদি মনে করেন আজ একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে তাতে আমি লিংক বিল্ডিং বা ভাল মানের আর্টিকেল লিখে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে তার ডোমেইন অথরিটি বাড়িয়ে নেব তাহলে সেটি ভুল ভাবছেন।

    আমি আগেই বলেছি ডোমেইন অথরিটি হলো এক ধরনের বিশ্বস্থতা। যে বিশ্বাস আপনার ভিজিটর গুলো আপনার ওয়েবসাইটের প্রতি করে সেটি হলো ডোমেইন অথরিটি। হঠাৎ যদি আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর না আসে অন্য কোন ওয়েবসাইট থেকে উপযুক্ত বা হাই কোয়ালিটি ব্যাকলিংক না থাকে তবে কখনও আপনার ওয়েবসাইট গুরুত্ব পাবে না।

    আশাকরি বুঝতে পারলেন যে আপনার ওয়েবসাইটের বা Domain এর বয়স যত ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাবে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি ততো বৃদ্ধি পাওয়ার সুযোগ পাবে। 

    কারণ আপনি অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটে নিয়মিত কাজ করবেন এবং যথেষ্ট পরিমান ভিজিটর আপনার ওয়েবসাইটে এসে তারা বিষয়গুলিকে জানবে এবং গুরুত্ব দেবে। সুতরাং বুঝতে পারলেন যে ডমিন এর বয়স বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তার অথরিটি বাড়তে থাকে।


Regular Updates :   আমরা প্রথমে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করি তা থেকে টাকা ইনকাম করার জন্য এ কথা অস্বীকার করতে পারবোনা। কিন্তু এই নেশায় প্রথমদিকে আমাদের ওয়েবসাইটে আমরা প্রচুর পরিমাণে আর্টিকেল পোস্ট করতে থাকি।

    কিন্তু ধীরে ধীরে এই আর্টিকেল পোস্ট বা ওয়েবসাইটে নানারকম আপডেটগুলি করতে আমরা ভুলে যাই বা করি না। এই কারণে সার্চ ইঞ্জিন এর কাছে আমাদের ওয়েবসাইটগুলি গুরুত্ব হারায়।

    ধরুন 2015 সালে লেখা কোন বিষয় একটি ওয়েবসাইটে আপনি পড়ছেন, তাহলে সেখানে নিশ্চয়ই আপনি দুই হাজার কুড়ি সালের বিষয়গুলি পেতে পারেন না। অর্থাৎ ওই ওয়েবসাইটটি আপডেট নেই। এই কারণে সঙ্গে সঙ্গে আপনি সেখান থেকে বেরিয়ে আসবেন তার মানে হল আপনি ওয়েবসাইটটিকে গুরুত্ব দিলেন না।

    আশাকরি বুঝতে পারলেন যে প্রতিনিয়ত আর্টিকেলগুলো ওয়েবসাইটটিকে আপডেট করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ আমাদের ডোমেইন অথরিটিকে বাড়ানোর জন্য।



আমার মতামত :   প্রথমত বলি একটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও যথাযথ সাবলীল ভাষায় বিভিন্ন তথ্য আপনাদের বোঝানো আমার একান্ত ইচ্ছা। এই কারণে একটি ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বা ডি এ কিভাবে বাড়ানো যেতে পারে এই বিষয়টি যথেষ্ট পরিষ্কার ভাবে বোঝানোর চেষ্টা করলাম।

    যদিও আজ পর্যন্ত কোনো বড় সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজার বা বড় মাপের কোন ডিজিটাল মার্কেটিং কোম্পানী বলতে পারিনি কিভাবে কোন ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বৃদ্ধি পায়। সুতরাং সেখানে দাঁড়িয়ে আমি ইন্টারনেট থেকে যে সমস্ত তথ্য পেয়েছি অর্থাৎ যে গুলির মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি বাড়তে পারে সেগুলি নিয়ে এখানে আলোচনা করেছি।

    এবং আশা রাখি আপনি যদি এই কোটি পদ্ধতি অবলম্বন করেন তাহলে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটটি সার্চ ইঞ্জিনে প্রথম দিকে চলে আসবে। আর এই প্রথম দিকে আসার ফলে আপনি ভিজিটর পাবেন সাথে সাথে গুরুত্ব পাবেন।

    আর গুরুত্ব পাওয়ার বিষয়টি কোন ওয়েবসাইটের ডোমেইন অথরিটি সঙ্গে যুক্ত বলে আমি মনে করি। তাই আপনি এমন ভাবে ওয়েবসাইট তৈরি করুন বা এমন তথ্য শেয়ার করুন যা আপনার ওয়েবসাইট এর গুরুত্ব কে বাড়িয়ে তোলে।