Ram Rahim : একাধিক খুনের মামলায় বেকসুর খালাস পেলেন রাম রহিম

Ram Rahim : একাধিক খুনের মামলায় বেকসুর খালাস পেলেন রাম রহিম, দীর্ঘকাল ধরে ধর্ম গুরুর ছদ্মবেশ ধারণ করে Gumreet Ram Rahim ওরফে বাবা রাম রহিম, সাধারণ জনগণের উপরে একাধিক অত্যাচার করে বলে দাবি সেই কেস চলছিল দীর্ঘদিন ধরে। আজ সেই কেসের ফয়সালা হয়ে তাকে বেকসুর খালাস দিল কোর্ট থেকে।

 

কে এই বাবা রাম রহিম ( Ram Rahim) ?

তিনি সত্যিই একটি বর্ণময় চরিত্র।bহরিয়ানা-পাঞ্জাবে অন্তত ৫ লক্ষ সরাসরি ভক্ত আছে গুরমিত রাম রহিমের। তাদের দাবী, সারা বিশ্বে গুরু রাম রহিমের ছয় কোটি ভক্ত আছে। তবে বিতর্ক সব সময় রাম রহিম সিংকে তাড়িয়ে বেরিয়েছে বলাযায় তিনি নিজেই বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন।

 

তিনি ডেরা সাচ্চা সৌদা নামের একটি সম্প্রদায়ের নেতা – হরিয়ানার সিরসায় তাঁর প্রকাণ্ড হাই-টেক আশ্রম আছে।

 

বাবা Ram Rahim এর বিরুদ্ধে অভিযোগ

তাঁকে সবসময়ে ঘিরে থাকে সশস্ত্র ব্যক্তিগত রক্ষীর দল। শিখ, হিন্দু, মুসলিম সব ধর্মের চেতনার মিশেলেই তৈরি হয়েছে তাঁর ধর্মীয় সম্প্রদায়। ডেরা সাচ্চা সৌদার প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ১৯৪৮ সালে। শাহ মস্তানা নামের এক ধর্মগুরু এর পত্তন করেন।

বর্তমান প্রধান গুরমিত সিং ১৯৯০ সালে সম্প্রদায়ের নেতৃত্বের ভার নেন। তিনি একাধারে ধর্মপ্রচারক, সমাজ সংস্কারক, গায়ক, সিনেমার নায়ক ও পরিচালক।

অনেকগুলি চলচ্চিত্র তিনি তৈরি করিয়েছেন, আর সেই সব ছবিতে নিজেই নানা রকম স্টান্ট দেখান তিনি। যেগুলো হরিয়ানা, পাঞ্জাব সহ উত্তরপ্রদেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের যুবক, নারীদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয়।

 

বছর কয়েক আগে দেওয়া একটি সাক্ষাতকারে তিনি বলেছিলেন, “যুব সমাজ যদি ধর্মীয় আলোচনা সভাগুলোতে আসতে না চায়, তারা সেই সময়ে লুকিয়ে হয়তো সিনেমা দেখতে চলে যায়। তাই আমি সিনেমা হলেই তাদের কাছে পৌঁছিয়ে গেছি।”

হরিয়ানার সিরসায় তার ডেরা সাচ্চা সৌদা আশ্রমের প্রাঙ্গণে নিয়মিত বসে পপ কনসার্ট। সেখানে গান ডেরার প্রধান, গুরমিত রাম রহিম সিং নিজেই – তার তুমুল জনপ্রিয় ‘ইউ আর মাই লাভ চার্জারে’র মতো আরও অনেক গান!

 

চাক-চিক্যময় পোশাক-আষাক পরে গানের ভিডিওতে পারফর্ম করার জন্য তাকে অনেকে ‘রকস্টার বাবা’ নামে অভিহিত করেছেন।

 

তিনি তিনটি সিনেমা তৈরি করেছেন যেগুলো অনেক বিতর্কের পর কয়েকটি ভারতীয় ভাষায় মুক্তি পায়।

 

এই সিনেমাগুলির একটি, এমএসজি: মেসেঞ্জার অফ গড’ – এর ট্রেইলারে মিঃ সিংকে দেখা যায় বিভিন্ন স্টান্ট পারফর্ম করতে, অন্য গ্রহের বাসিন্দা, ভুত এবং হাতীর সাথে লড়াই করতে এবং খলনায়কদের শায়েস্তা করেতে।

 

‘তার সদম্ভে চলা-ফেরাটা নিঃসন্দেহে বলিউডী, যেটা তাকে ‘সব হিরোর বাপ’ বলে চালাতে যথেষ্ট,’ দ্য হিন্দুস্তান টাইমস-এর এক পর্যালোচনায় বলা হয়।

‘এমএসজি: মেসেঞ্জার অব গড’ সিরিজের যে সিনেমাগুলোতে বাবা রাম রহিম নিজেই নায়ক গুরুজির অভিনয় করেছেন, হাজার হাজার গাড়ির কনভয় নিয়ে সেই ছবি দেখতে এসে তাঁর ভক্তরা একাধিকবার দিল্লির কাছে গুরগাঁও অচল করে দিয়েছেন!

 

কেনো বেকুসুর খালাস বাবা Ram Rahim এর

ধর্ষণ থেকে খুন একাধিক অভিযোগ রয়েছে স্বঘোষিত ধর্মগুরু ডেরা প্রধান রামরহিমের বিরুদ্ধে। ২০০২ সালে ম্যানেজার খুনের ঘটনায় তাঁকে মঙ্গলবার বেকসুর খালাস করল পাঞ্জাব এবং হরিয়ানা আদালত। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য। ২০২১ সালে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিল।

 

২০০২ সালে ডেরা সাচা সওদার ম্যানেজারকে খুনের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত ছিলেন তিনি। রঞ্জিত সিংহ নামে ডেরার সেই ম্যানেজারকে গুলি করে হত্যা করেছিলেন তিনি। এই হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে আরও ভয়ঙ্কর কারণ ছিল। বলা হয়েছিল ডেরার প্রধান হরিয়ানায় তাঁর আশ্রমে মহিলা আশ্রমিকদের উপর যৌন নির্যাতন চালাতেন।

 

এমনকী একাধিক মহিলা আশ্রমিককে ধর্ষণও করেছিলেন তিনি। সেই ঘটনার অভিযোগের চিঠি ডেরার প্রাক্তন ম্যানেজার রঞ্জিত সিংয়ের হাতে ছিল। সেই প্রমাণ লোপাট করতেই তাঁকে খুন করা হয়েছিল।

 

সেই মামলায় রাম রহিমকে গ্রেফতার করতে গিয়ে হিমসিম খেয়েছিল পুলিশ। তুমুল অশান্তি তৈরি হয়েছিল হরিয়ানা-পাঞ্জাব জুড়ে। রামরহিমের অনুগামীরা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানিয়েছিল। সেই মামলায় রামরহিমকে গ্রেফতারের পর তাকে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা দেয় সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত। সেই সঙ্গে ৩১ লক্ষ টাকা জরিমানাও করা হয়।

আগে ২০২১ সালে পঞ্চকুলার বিশেষ সিবিআই আদালত তাকে ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত করেছিল। এবং সেই মামলায় ২০ বছরের কারাদণ্ডের সাজা শোনানো হয়েছিল রামরহিমকে। আবার ২০১৯ সালে সরিসার সাংবাদিক রাম চন্দর ছত্রপতিকে হত্যা করার মামলায় তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দেয় সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত।

 

এই সাজাকাটার সময়ের মধ্যে ৭ বার প্যারোল নিজে জেল থেকে বেরিয়েছেন রামরহিম। এই মামলায় রাম রহিম ছাড়াও অবচার সিং, কৃষাণ লাল, জসবীর সিং এবং সবদিল সিংকে বেকসুর খালাস করেছে আদালত। এদের মধ্যে একজন দোষী সাব্যস্তের মৃত্যু হয়েছে জেলেই।

 

গুরমিত রাম রহিমের বিরুদ্ধে খুন, ধর্ষণের মতো অভিযোগ থাকলেও এখনও তাঁর অনুগামীর সংখ্যা নেহাত কম নেই। ডেরা সাচা এখনও পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার একাধিক জায়গা জুড়ে রয়েছে। তার অনুগামীর সংখ্যাতেও কিন্তু তেমন ভাঁটা পড়েনি। তদন্তকারীরা জানিয়েছে গরিব দুঃস্থদের নানারকম আর্থিক রোজগারের সুযোগ করে দিয়ে মন জয় করতেন গুরমিত।

 

ram rahim rape case,ram rahim on parole,baba ram rahim song,gurmeet ram rahim singh case রাম রহিম,রাম রহিম সিং,বাবা রাম রহিম,ভন্ড বাবা রাম রহিম,‘বাবা রাম রহিম সিং,ধর্ষক বাবা রাম রহিম সিংয়

বেকুশুর খালাস পেলেন বাবা Ram Rahim, 

baba ram rahim,ram rahim,gurmeet ram rahim,gurmeet ram rahim singh,saint dr. gumeet ram rahim singh ji insan,ram rahim news,ram rahim parole,ram rahim latest news,ram rahim baba,ram rahim case,ram rahim singh,gurmeet ram rahim news,dera chief ram rahim,

 

রাম রহিম,রাম রহিম সিং,বাবা রাম রহিম,ভন্ড বাবা রাম রহিম,‘বাবা রাম রহিম সিং,ধর্ষক বাবা রাম রহিম সিংয়,কে এই ধর্মগুরু বাবা রাম রহিম,ভন্ড বাবা রাম রহিমের গোমড় ফাঁস,জেলে কোন নারীর দেখা পেল বাবা রাম রহিম,জেলে বসেই জামাই আদরে ভণ্ড বাবা রাম রহিম,ভন্ড বাবা রাম রহিমের ব্যক্তিগত আবাস,রাম রহিম সিং !,রাম রহিম সিংয়,গোপন ডেরায় রাতের আধারে মহিলাদের কি করতেন বাবা রাম রহিম,বিকৃত যৌনাচারি রাম রহিম,গুরমিত রাম রহিম সিং,ভন্ড বাবা রামরহিম

Leave a Comment